Close

এশিয়া কাপ ক্রিকেটের স্বাগতিক চূড়ান্ত

বাংলাদেশ সর্বশেষ তিন এশিয়া কাপের আয়োজক ছিল। এর মধ্যে দুবার ফাইনালও খেলেছে। এবার ১৫তম এশিয়া কাপ হচ্ছে আরব আমিরাতে; যদিও তা হওয়ার কথা ছিল ভারতে। এ-সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিক চুক্তি হলো। যদিও অনেক আগে আয়োজক দেশ, ভেন্যু, তারিখ, ম্যাচের সূচি সব ঠিক হয়ে গেলেও আসল আনুষ্ঠানিকতা বাকি ছিলো। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের বিসিসিআই সঙ্গে চুক্তি হলো আমিরাত ক্রিকেট বোর্ডের ইসিবি।

ভারত-পাকিস্তান টানাপোড়েনের কারণে আগের তিনটি এশিয়া কাপই হয়েছে বাংলাদেশে। এবার ভেন্যু বদলে ভারতে আয়োজন করার কথা থাকলেও আড়ালের জটিলতা সেই দুই দেশের সম্পর্কই। ফলে, ভারত অনেক আগেই আরব আমিরাতকে এশিয়া কাপ আয়োজনের ভার দিয়ে রেখেছিল। ৬ দলের এই টুর্নামেন্ট দুবাই ও আবুধাবিতে ১৫ সেপ্টেম্বর শুরু হয়ে শেষ হবে ২৮ সেপ্টেম্বর। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড শেষ পর্যন্ত সরকারের সবুজ সংকেত না পাওয়ায় আরব আমিরাতকে আয়োজনের ভার দিয়েছে।

শুধু প্রশ্ন এক জায়গায় আটকে ছিল। আয়োজক কি ভারতই হবে, শুধু আয়োজন করবে আরব আমিরাত? যেমন পাকিস্তানের অনেক ম্যাচ দুবাই-আবুধাবিতে হয়। সেটার আয়োজন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড পিসিবি থাকে। এ নিয়ে বিসিসিআইয়ের মধ্যে দ্বিধাদ্বন্দ্ব ছিল বলেই হয়তো এত দিন চুক্তি হয়নি। আরব আমিরাতই আয়োজন করবে এশিয়া কাপ। ভারত অংশীদার আয়োজক হিসেবে আমিরাতকে সহযোগিতা দেবে। যদিও টুর্নামেন্টের লভ্যাংশ কীভাবে দুই বোর্ডের মধ্যে ভাগাভাগি হবে, তা পরিষ্কার নয়। আয়োজক দেশের মূল টাকা আসে স্পনসর ও টিকিট মানি থেকে।

টিভি সম্প্রচারের পুরোটা এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল এসিসির পকেটে যায়। টুর্নামেন্ট আয়োজন বাবদে এসিসি অবশ্য ২৫ লাখ ডলার বরাদ্দ করেছে। সেটি পুরোটাই পাবে আরব আমিরাত। যদিও খবর এসেছে, আয়োজন ব্যয় বাজেট ছাড়িয়ে যাচ্ছে। এর ফলে এশিয়া কাপ তার আঁতুড়ঘরে ফিরছে। এ নিয়ে আরব আমিরাতও খুশি। চুক্তি শেষে আমিরাত ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান শেষ নাহিয়ান বিন মুবারক আল নাহিয়ান আশা প্রকাশ করেছেন, জমজমাট এক আসর হবে এবার। আয়োজক দেশগুলোর প্রচুরসংখ্যক প্রবাসী থাকে আমিরাতে। তারা নিজ নিজ দলকে সমর্থন দিতে গ্যালারিতে ভিড় জমাবেন বলে আশা আমিরাতের। তা ছাড়া আমিরাতও বাছাইপর্ব পেরিয়ে আসতে পারলে স্থানীয় দর্শকদের সংখ্যা বাড়বে। ১৯৮৪ সালে প্রথম এশিয়া কাপের আয়োজন করেছিল আরব আমিরাত। সর্বশেষ ১৯৯৫ সালে এখানে এ আসর বসেছিল।

১০ বছর পর এবার এশিয়া কাপ ৬ দলের টুর্নামেন্ট হচ্ছে। বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, আফগানিস্তান এই পাঁচ দেশের সঙ্গে যুক্ত হবে বাছাইপর্ব পেরিয়ে আসা একটি দল। ২৯ আগস্ট ৬ দলের সেই বাছাইপর্ব শুরু হচ্ছে। সব মিলিয়ে তাই এশিয়া কাপ হবে আসলে ১১ দলের। বাছাইপর্ব হবে মালয়েশিয়ায়। বাছাই পর্বের শীর্ষ দলটি ভারত ও পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্ত হবে এ গ্রুপে। বি গ্রুপে বাংলাদেশের সঙ্গে আছে শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তান। দুই গ্রুপের শীর্ষ দুটি দল খেলবে সুপার ফোর। সুপার ফোরে প্রত্যেক দল তিনটি করে ম্যাচ খেলার পর শীর্ষ দুই দলকে নিয়ে হবে ফাইনাল।

Share on Facebook
নিউজটি 39 বার পড়া হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

16129961_1730814400566375_1235166755_o