Close

সৎমেয়েকে ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন

সৎমেয়েকে ধর্ষণের দায়ে নবাব আলী ওরফে লোবা (৩৭) নামের এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাঁকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদণ্ডাদেশ ভোগ করতে হবে তাঁকে।

বুধবার দুপুরে রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ১-এর বিচারক মনসুর আলম এই রায় ঘোষণা করেন।

নবাব আলী রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার চন্দনমাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা। তাঁর বাবার নাম আশরাফ আলী। রায় ঘোষণাকালে তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ইসমত আরা জানান, ঘটনার সময় মামলার বাদী ১৪ বছরের কিশোরী ছিল। সে সম্পর্কে নবাব আলীর সৎমেয়ে। আপন বাবা মারা যাওয়ার পর তার মায়ের সঙ্গে নবাব আলীর বিয়ে হয়। ২০১১ সালে নবাব তাঁর স্ত্রী ও মেয়েকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে দেন। এরপর তিনি মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন। ঘটনার পর মেয়েটি তার নানিকে বিষয়টি জানায়। তবে মেয়ের সংসার ভেঙে যাওয়ার ভয়ে তিনি বিষয়টি গোপন রাখেন।

এ ঘটনার সাত মাস পর ২০১২ সালের ৪ এপ্রিল নবাব তাঁর স্ত্রীকে জুসের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে খাওয়ান। এতে তিনি ঘুমিয়ে পড়লে রাতে আবার ওই মেয়েকে ধর্ষণ করেন। এই ঘটনার পর একসময় মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। এ সময় তাকে চাচার বাড়ি টাঙ্গাইলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। পরে ওই কিশোরী আবার ফিরে আসে।

পরে ঘটনাটি প্রকাশ্যে নিয়ে এসে ওই বছরের ১৯ জুলাই মেয়েটি বাদী হয়ে তার সৎবাবার বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। ঘটনা জানার পরেও গোপন করার চেষ্টা করার অভিযোগে ওই মামলায় তার নানিকেও আসামি করা হয়। তবে আদালত তার নানিকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

রায় ঘোষণাকালে সৎবাবার হাতে মেয়ে ধর্ষণের ঘটনাটিকে সামাজিক অবক্ষয় হিসেবে উল্লেখ করেন আদালত।

মোট ছয়জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আজ আসামি নবাবের উপস্থিতিতেই এ রায় ঘোষণা করা হয়। পরে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট ইসমত আরা। আসামিপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খায়রুন্নাহার কাজল।

Share on Facebook
নিউজটি 65 বার পড়া হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

16129961_1730814400566375_1235166755_o